Latest

মাটি জল ও তাপের তপস্যা

Author: 
অনুপম মিশ্র
source: 
(অনুবাদ : নিরুপমা অধিকারী)
Source: 
'राजस्थान की रजत बूँदें' बंगाली संस्करण

তাই মরুভূমিতে জ্যৈষ্ঠকে কেউ গালমন্দ করে না l পুরো শরীর ঢেকে রাখা হয়, শুধু মুখটুকু খোলা থাকে l জোরে বয়ে চলা দক্ষিণী হাওয়া বালি তুলে তুলে মুখে ছুঁড়ে মারতে থাকে l তবুও যারা পশু চরায় অথবা গোয়ালারা, তারা জ্যৈষ্ঠকে গান গেয়ে স্বাগত জানায় এবং জ্যৈষ্ঠকে পাঠানোর জন্য শুদ্ধ কবির-ই শৈলীতে প্রভুকে ধন্যবাদ দেয় l ‘জেঠ মহিনো ভঁলা আয়ো দক্ষণ বাজে বা (হাওয়া), কানোঁ রে তো কাঁকড় বাজে ওয়ারে সাঁই ওয়াহ’ l

মরুভূমিতে মেঘের এক টুকরো হালকা রেখা দেখা গিয়াছে কী যায়নি ছোটদের দল একটা বড় চাদর নিয়ে বেরিয়ে পড়ে l আটটি ছোট ছোট হাত চাদরটাকে চার কোণায় মেলে ধরে থাকে l এবার দলটা ঘরে ঘরে যাবে সঙ্গে চলবে গান-

ডেডরিয়ো করে ডরুঁ,ডরুঁ
পালর পানি ভরুঁ ভরুঁ
আধি রাত রি তলাই নেষ্টেই নেষ্টে…


প্রতিটি ঘর থেকেই চাদরে এক মুঠো করে গম দেওয়া হয় l কোথাও কোথাও বাজরার আটাও l পুরো পাড়া পরিক্রমা হতে হতে চাদরের ওজন বাড়তে থাকে এবং ছোট ছোট আটটি হাত ওজন তুলতে যথেষ্ট মনে হয় না l চাদর গুটিয়ে নেওয়া হয় l এবার এই দলটা কোথাও একটা জমা হবে l আনাজ সেদ্ধ করে তৈরি হবে গুগরি1 l কণা কণা সংগ্রহ এইভাবে বাচ্চাদের তৃপ্ত করে l

এবার বড়দের পালা- বিন্দু বিন্দু করে জল সংগ্রহ করে সারা বছর ধরে তৃপ্ত থাকার l কিন্তু রাজস্থানের জল সংগ্রহের ঐতিহ্যটিকে বোঝার আগে এই জায়গাটার সঙ্গে কিছুটা পরিচিত হওয়া প্রয়োজন l

কমপক্ষে জলের ব্যাপারে রাজস্থানের কুণ্ডলী শুভ l নিজেদের প্রচেষ্টা ও কৌশলে এটিকে মঙ্গলময় করে তোলা অবশ্য খুব একটা সহজ কাজ ছিল না l কাজটা আবশ্যই কঠিন আবার জায়গার বিস্তৃতিটাও কম নয় l ক্ষেত্রফলের হিসেবে বর্তমান রাজস্থান দেশের সব থেকে বড় রাজ্য l দেশের ক্ষেত্রফলের শতকরা এগারো ভাগ, প্রায় 3.42.215 বর্গ কিলোমিটার জুড়ে এর বিস্তৃতি l এই হিসেব অনুযায়ী বলা যায়, পৃথিবীর অনেক দেশের তুলনাতেই ক্ষেত্রফলে বড় আমাদের এই রাজ্য l ইংল্যাণ্ডের থেকে তো দ্বিগুণই বলা যায় l

প্রথমে ছোট বড় মিলিয়ে একুশটা রিয়াসত ছিল, এখন একত্রিশটা জেলা l এর মধ্যে তেরোটা জেলা রয়েছে আরাবল্লী পর্বতমালার পশ্চিমে আর বাকিগুলো পূর্বে l পশ্চিম ভাগের তেরোটি জেলার নাম হল : জয়সলমের, বাড়মের, বিকানের, যোধপুর, জালৌর, পালি, নগৌর, চুরু, শ্রীগঙ্গানগর, সিকর, হনুমানগড়, সিরোহি ও ঝুঁঝনু l পূর্বে ও দক্ষিণে পড়ে – বাঁসওয়াড়া, ডুঙ্গারপুর, উদয়পুর, কাঁকরোলি চিতোরগড়, ভিলওয়াড়া, ঝালওয়াড়, কোটা, বারাঁ, বুঁদি, ঢোঁকা, সওয়াইমাধোপুর, ধৌলপুর, দৌসা, জয়পুর, অজমের, ভরতপুর ও অলওর জেলা l এই রাজ্যের সব থেকে বড় জেলা হল জয়সলমের l জয়সলমের বিস্তৃতি প্রায় 38.400 বর্গ কিলোমিটার। সব থেকে ছোট জেলা হল ধোলপুর, যা জয়সলমেরের দশ ভাগের এক ভাগ l

বর্তমান ভৌগোলিকেরা এই পুরো এলাকাটিকে চার ভাগে ভাগ করেছেন l মরুভূমিকে বলা হয় পশ্চিমের বালুকাময় ময়দান বা শুষ্ক ক্ষেত্র l এর সঙ্গে লাগোয়া অঞ্চলকে বলা হয় অর্ধশুষ্ক ক্ষেত্র l যার পুরোনো নাম ছিল ‘বাগড়’ l এছাড়া রয়েছে আরাবল্লী পর্বতমালা এবং মধ্যপ্রদেশ প্রভৃতির সঙ্গে লাগোয়া রাজ্যের সংশ্লিষ্ট ভাগকে বলা হয় দক্ষিণ পূর্ব পাহাড়ী অঞ্চল l এই যে চারটি ভাগ, এর মধ্যে সব থেকে বড় অংশ হল পশ্চিমের বালুকাময় ময়দান বা মরুভূমি l যার পূর্ব প্রান্ত গিয়ে ঠেকেছে উদয়পুরের কাছে, উত্তর প্রান্ত পাঞ্জাব ছুঁয়ে যায়, দক্ষিণ প্রান্ত গুজরাত এবং পশ্চিমের সমস্ত অংশটিই জুড়ে রয়েছে পাকিস্তানের সঙ্গে l

মরুভূমি অবশ্য পুরোটাই মরুময় নয়; কিন্তু যতটা রয়েছে সেটাও কিছু কম নয় l এর মধ্যে পড়ে জয়সলমের বাড়মের, বিকানের, নাগৌর, চুরু ও শ্রীগঙ্গানগর জেলা l এখানেই রয়েছে বালির বড় বড় টিলা, যাকে স্থানীয় কথায় বলা হয় ‘ধোরে’ l গরমের দিনে তীব্র ঝড়ে বলির টিলাগুলো যেন পাখা মেলে এদিক থেকে ওদিকে উড়ে বেড়ায়2 l তখন অনেকবারই রেল লাইন, ছোট-বড় রাস্তা বা জাতীয় সড়কও বলির তলায় চাপা পড়ে যায় l এই অংশেই বর্ষা সব থেকে কম l ভৌমজল প্রচুর নীচে; প্রায় একশো থেকে তিনশো মিটার তাও আবার বেশির ভাগই নোনতা l

যে অংশটাকে অর্ধ শুষ্ক বলা হয় তা বিশাল মরুভূমি ও আরাবল্লী পর্বতমালার মাঝে উত্তর পূর্ব থেকে দক্ষিণ পশ্চিমে লম্বালম্বি বিস্তৃত রয়েছে l এখান থেকেই বর্ষা কিছুটা বাড়তে থাকে l তবুও সে পরিমাণটা পঁচিশ থেকে পঞ্চাশ সেণ্টিমিটারের মধ্যেই ঘোরা-ফেরা করে l আর এই পরিমাণটা দেশের গড় বৃষ্টিপাতের অর্ধেকই দাঁড়ায় l অর্ধশুষ্ক অঞ্চলের কোথাও কোথাও দোয়াঁশ মাটি দেখতে পাওয়া গেলেও বাকি সমস্ত জায়গায় সেই চির পরিচিত বালি l মরুভূমির প্রসার আটকানোর সমস্ত রকম রাজ্য ও কেন্দ্রীয় স্তরের পরিকল্পনাগুলিকে3 বুড়ো আঙুল দেখিয়ে মরুঝড় আরাবল্লীর ‘দরো’4 থেকে বালি তুলে নিয়ে গিয়ে পূর্বদিকে ফেলে l এই ছোট ছোট দরোগুলো রয়েছে ব্যাবর, অজমের ও সিকরের কাছেই l

অর্ধশুষ্ক অঞ্চলেই রয়েছে ব্যাবর, অজমের, সিকর ও ঝুঁঝনু জেলা এবং বিপরীত দিকে নানৌর, যোধপুর, পালি, জালৌর ও চুরুর কিছু অংশ l ভৌমজলের গভীরতা এখানেও একশো থেকে তিনশো মিটার এবং স্বাদেও নোনতা l

এই অঞ্চলগুলির জল তো নোনতা বটেই, কিছু অংশে আরও এক বিচিত্র পরিস্থিতি দেখা যায়- মাটিও নোনতা l এরকম নোনা জায়গায় নীচু ভাগে নোনতা জলের ঝিল দেখতে পাওয়া যায় l সাম্ভর, ডোগানা, ডিডওয়ানা, পচপদরা, লুনকরনসর, বাপ, পোকরান ও কুচামন অঞ্চলের ঝিলে তো নিয়মমাফিক নুনের চাষ হয় l ঝিলের পাশে মাইলের পর মাইল জায়গা জুড়ে জমিতে নুন উঠে এসেছে l

এরই সঙ্গে পুরো রাজ্যটাকে তেরছাভাবে কেটে রেখেছে পৃথিবীর প্রাচীনতম পর্বতমালাগুলির অন্যতম আরাবল্লী l এর উচ্চতা যদিও কম, বয়সে কিন্তু এটি হিমালয়ের থেকেও পুরোনো l একেবারে এর কোলেই অবস্থান করছে সিরোহি, ডুঙ্গারপুর, আবু, আজমের এবং আলওয়ার l উত্তর-পূর্বে আরাবল্লী পর্বতমালা দিল্লিকে ছুঁয়েছে এবং দক্ষিণ পশ্চিমে গুজরাতকে l মোট দৈর্ঘ্য সাতশো কিলোমিটার, তার মধ্যে পাঁচশো পঞ্চাশ কিলোমিটার রাজস্থানকে কেটে রেখেছে l রাজ্যের এই অংশটুকুকেই বর্ষার ক্ষেত্রে সম্পন্নতম এলাকা বলে মনে করা হয় l আরাবল্লী থেকে নেমে এসে উত্তরে, উত্তর-পূর্ব থেকে দক্ষিণ-পূর্ব পর্যন্ত বিস্তৃত আরও একটা ভাগ রয়েছে l যে ভাগে পড়ে উদয়পুর, দুঙ্গারপুরের কিছু অংশ এবং বাঁসওয়াড়া, ভিলওয়াড়া, বুন্দি, টোঁক, চিতোরগড়, জয়পুর এবং ভরতপুর জেলা l মরুনায়কজি অর্থাত্ শ্রীকৃষ্ণের জন্মস্থান ব্রজভূমির সঙ্গে গায়ে গা লাগিয়ে রয়েছে ভরতপুর l দক্ষিণ-পূর্বের মালভূমি অঞ্চল এখানে এসেই শেষ হয়েছে l এরই মধ্যে রয়েছে কোটা, বুঁদি, সওয়াইমাধোপুর এবং ধৌলপুর l ধৌলপুর থেকেই শুরু হয়ে গেল মধ্যপ্রদেশের বিহড় l ভূপৃষ্ঠে বা ধরিত্রীতে যেখানে যেভাবে মাটির স্বভাব পাল্টেছে, ঠিক সে ভাবেই ওপরে আকাশের স্বভাবও বদলাতে থাকে l

আমাদের দেশে বর্ষা আসে মৌসুমি বায়ুতে চড়ে l মে-জুন মাসে সারা দেশ তপ্ত হয়ে ওঠে l এই অতিরিক্ত তাপের ফলে বাতাসের চাপ ক্রমাগত কমতে থাকে l অন্য দিকে সমুদ্রের ভারী হাওয়া নিজের শরীরে সমুদ্রের সমস্ত আর্দ্রতাকে মেখে নিয়ে যেখানে বাতাসের চাপ কম সেইদিকে উড়ে চলে l এই হাওয়াকেই বলে মৌসুমি বায়ু l

রাজস্থানের আকাশে মৌসুমি বায়ু আসে দুই দিকে থেকে l প্রথমত, আরব সাগরের দিক থেকে, দ্বিতীয়ত বাংলার বঙ্গোপসাগরের দিক থেকে l কিন্তু দু-দিক থেকে আসা মেঘেও এখানকার কোথাও কোথাও ততটা বৃষ্টি ঘটাতে পারে না, যতটা তারা বর্ষিত করে থাকে তাদের আসার পথের ওপর যে কোনো স্থানে l

সুদূর বঙ্গোপসাগরে যে মৌসুমি বায়ু প্রবাহের সূচনা, তা বিশাল গাঙ্গেয় সমভূমি পার হয়ে আসতে আসতে নিজের সমস্ত আর্দ্রতাই প্রায় হারিয়ে ফেলে l রাজস্থান পর্যন্ত পৌঁছাতে পৌঁছাতে তার অঞ্জলিতে আর ততটা জল থাকে না, যে সে রাজস্থানকে পর্যাপ্ত জল দিতে পারবে l আর আরব সাগর থেকে উত্থিত মৌসুমিবায়ু যখন এখানকার তপ্ত এলাকায় পৌঁছায়, তখন প্রচণ্ড গরম তার অর্ধেক আর্দ্রতাই শুষে নেয় l পুরো রাজ্যকে আড়াআড়িভাবে কেটে রেখেছে যে আরাবল্লী এতে তারও ভূমিকা রয়েছে l

আরাবল্লী প্রসারিত রয়েছে দক্ষিণ-পশ্চিম থেকে উত্তর-পূর্বে l মৌসুমিবায়ুও একই পথে প্রবাহিত হয় l তাই মৌসুমিবায়ু আরাবল্লী পার হয়ে পশ্চিমের মরুভূমিতে প্রবেশ করার পরিবর্তে আরাবল্লীর সমান্তরালে বয়ে চলে এবং চলার পথে বর্ষিত হতে হতে চলে l তাই সিরোহি ও আবুতে প্রচুর বৃষ্টি হয় l প্রায় একশো পঞ্চাশ সেণ্টিমিটার l পরিমাণটা রাজ্যের গড় বৃষ্টিপাতের প্রায় তিনগুণ l এই অংশটি আবার আরাবল্লীর উচ্চতর অঞ্চল বলে মৌসুমিবায়ু এখানে ধাক্কা খেয়ে নিজের অবশিষ্ট জলীয় বাষ্প সবই বিতরণ করে যায় এবং মরুভূমিকে আরাবল্লীর পিছনে ফেলে রেখে শেষ হয় আজকের ভূগোলের সামর্থ্যও l

কিন্তু মাটি, বর্ষা ও তাপের এই যে নতুন বৈজ্ঞানিক পরিভাষা, মরুভূমির ‘সমাজের’ নিজস্ব ভাষা কিন্তু তার থেকে সম্পূর্ণ আলাদা l মরুভূমির সমাজে মাটি, বর্ষা ও তাপের তপস্যা যেন এক মূর্ত রূপ পরিগ্রহ করেছে, সাধনায় পরিণত হয়েছে l যে সাধনার এক দিকে রয়েছে জীবনের তেজময়তা এবং অন্যদিকে শীতলতা l ফাল্গুন মাসের হোলিতে আবির-গুলালের সঙ্গে সঙ্গেই মরুনায়কজি মরুভূমিতে হলুদ বালি ওড়াতে আরম্ভ করেন l চৈত্র আসতে না আসতেই ধরিত্রী তপ্ত হতে থাকে l আধুনিক ভৌগোলিকেরা এখানকার যে সূর্যের তাপে ভীষণভাবে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন, এখানে সেই সূর্যের আর এক নাম ‘পিথ’ l পিথ শব্দটির একটি অর্থ হল জল, কেননা সূর্যই তো পৃথিবীতে সমস্ত জলচক্রের তথা বর্ষার প্রভু l

আষাঢ়ের প্রারম্ভে সূর্যের চারিদিকে যে এক বিশেষ প্রভামণ্ডল দেখা যায়, তাকে বলা হয় ‘জলকুণ্ডো’ l জলকুণ্ডোকে বর্ষার ইঙ্গিত বলে মনে করা হয় l এই সময়ের উদিত সূর্যে যদি ‘মাছলো’ অর্থাত্ মাছের আকারের এক বিশেষ রশ্মি দেখা যায়, তাহলে অনতিবিলম্বেই বর্ষার সম্ভাবনা আছে বলে মনে করা হয় l সমাজকে বর্ষার ইঙ্গিত দিতে চাঁদও অবশ্য পিছিয়ে থাকে না l আষাঢ়ে চন্দ্রকলা যদি লাঙলের মতো সোজা দাঁড়িয়ে থাকে এবং শ্রাবণে তার মুদ্রা হয় বিশ্রামের, অর্থাত্ যেন শুয়ে রয়েছে এমন তাহলে ঠিকঠাক বর্ষা হবে l ‘উভো ভলে আষাঢ়, সুতো ভলো সরাবন’ l এ জাতীয় জলকুণ্ডো, মাছলো এবং চাঁদের বিভিন্ন রূপক সংক্রান্ত আলোচনায় ভর্তি রয়েছে ভডলি পুরাণ l ‘ভডলি পুরাণ’ রচনা করেন ডঙ্ক নামক এক জ্যোতিষাচার্য l ভডলি তার স্ত্রী l কোন কোন জায়গায় দুজনকে একই সঙ্গে স্মরণ করার চল রয়েছে l সে সব জায়গায় এই পুরাণকে বলা হয় ডঙ্ক-ভডলি পুরাণ l

মেঘ এখানে সব থেকে কম আসে কিন্তু তবু যদি এখানে মেঘের সব থেকে বেশি নাম পাওয়া যায়, তাহলে আশ্চর্য হওয়ার কিছু নেই l শুদ্ধ ভাষা ও চলিত ভাষাতে ‘ব’ এবং ‘ওয়’ -র পার্থক্যে, পুংলিঙ্গ এবং স্ত্রীলিঙ্গের পার্থক্যে বাদল হয়ে যায় ওয়াদল ওয়াদলি হয়ে যায় বাদলো বা বাদলি l সংস্কৃত থেকে এসেছে বর্ষা, জলহর জীমূত, জলধর, জলবাহ, জলধরণ, জলদ, ঘটা, ক্ষর (তাড়াতাড়ি নষ্ট হয়ে যায়), সারঙ্গ, ব্যোম, ব্যোমচর, মেঘ, মেঘাড়াম্বর, মেঘমালা, মুদির, মাহিমণ্ডল-এর মতো নামগুলি l আর চলিত ভাষায় তো নামের অঝোর ধারা - ভরণনদ, কালাহন, কারায়ন, কন্দ, হব্র, মৈমঁট, মেহাজল, মেঘাণ, মহাঘণ, রামইয়ো এবং সেহর l মেঘের এত প্রতিশব্দ এখানে পাওয়া যায় যে তার নিজেরই কম পড়ে যাওয়ার দশা l যথেষ্ট সাবধানতার সঙ্গে তৈরী করা এই তালিকায় যে কোনো গো-পালক ইচ্ছে করলেই আরও দু-চারটে নাম জুড়ে দিতে পারে l

ভাষা এবং তার সঙ্গে বর্ষা সম্পর্কে সমাজের গভীর অনুভব শুধুমাত্র এই কিছু নামের সঙ্গেই শেষ হয় না l মেঘের আকার-প্রকার, চাল-চলন ও স্বভাবের ওপর ভিত্তি করেও করা হয়েছে শ্রেণী বিভাজন l বড় বড় মেঘগুলোকে বলা হয় ‘সিখর’, আর ছোট ছোট তরঙ্গায়িত মেঘগুলো ‘ছিতরি’ l যে দুই-এক টুকরো মেঘ, ছড়িয়ে থাকা বিস্তৃত মেঘদল থেকে আলাদা হয়ে যায়, সেও উপেক্ষার পাত্র নয় l তারও একটা নাম আছে- ‘চুঁখো’ l দূর থেকে ঠাণ্ডা হাওয়ার সঙ্গে বর্ষার যে মেঘ উড়ে আসে, তাকে বলা হয় ‘কোলায়ণ’ l ঘন কালো মেঘের আগে আগে যেন সাদা পতাকা নিয়ে চলেছে যে এক খণ্ড মেঘ সে ‘কোরণ’ অথবা ‘কাগোলড়’ l আর শ্বেত পতাকা ছাড়াই ছুটে আসে যে মেঘপুঞ্জ তার নাম ‘কাঁঠল’ বা ‘কলায়ন’ l

এত ধরনের মেঘ রয়েছে আকাশে যে মাত্র চারটি দিকে কুলোয় না l তাই দিকও আবার আট প্রকার, এমনকী ষোলো প্রকারও l সমস্ত দিকগুলিরই আবার স্তর বিন্যাস রয়েছে l আর এক - একটা দিকের ওপরে, নীচে ও মাঝে উড়ে বেড়াচ্ছে সে মেঘগুলো তাদেরও আলাদা আলাদা নাম দেওয়া হয়েছে l হালকা ও উঁচুতে ভেসে থাকা মেঘ হল ‘কস’ বা ‘কসওয়াড়’ l নৈঋত কোণ থেকে ঈশান কোণের দিকে একটু নীচে জোরে বয়ে চলে যে মেঘ তার নাম ‘ঊঁব’ l সারাদিনই ঘন হয়ে রয়েছে যে মেঘটা আর ঝিরঝিরে অল্পস্বল্প বৃষ্টিও হচ্ছে, সে হল ‘সহাড়’ l পশ্চিমে দ্রুত উড়ে বেড়ানো মেঘ ‘লোঁরা’ এবং লোঁরার অবিরাম বৃষ্টির ধারা ‘লোঁরাঝড়’ l লোঁরাঝড় বর্ষার এক প্রকার গান-ও বটে l বর্ষা শেষ করে অর্থাত্ নিজের কর্তব্য সমাপন করে কোনো পাহাড়ের ওপর একটুখানি জিরিয়ে নিচ্ছে যে মেঘটা ? সে তো ‘রিঞ্ছি’ l

মেঘেরা কাজ শুরু করে, কাজ শেষ করে; শুধু তাই নয়, কাজের শেষে তাদের বিশ্রাম নেওয়া- পুরো পর্যায়টি গভীর অনুভবের দ্বারা অনুভব করতে পারে , বুঝতে পারে যে সমাজ, মেঘেদের এত ভালবাসে যে সমাজ, তারা তার প্রতিটি বিন্দুকে কতই না মঙ্গলময় মনে করে, তাই না?

এখন তো সূর্যই বর্ষণ করে চলেছে l জ্যৈষ্ঠ মাসের কৃষ্ণপক্ষের একাদশী l এই দিন থেকে শুরু হয় ‘নৌতপা’ l এই তিথি কখনও বদলায় না l ক্যালেন্ডারের হিসেবে অবশ্য এই তিথি হয় মে মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে আবার কখনওবা তৃতীয় সপ্তাহে l ‘নৌতপা’ অথবা ‘নওতপা’ অর্থাত্ ধরিত্রীর সব থেকে বেশি তপ্ত হওয়ার দিন l সূর্যের তাপে পৃথিবী যদি সম্পূর্ণ শুষ্ক না হয় তাহলে তো ভালো বর্ষা হবে না l এই তাপের তপস্যাতেই তো আসবে বৃষ্টির শীতলতা l

ওম - গোম,5 আকাশ এবং ধরিত্রীর, ব্রহ্ম এবং সৃষ্টির সম্বন্ধ, শাশ্বত l প্রখর রৌদ্রের আরও এক নাম ‘ঘাম’ l এই ঘাম শব্দ রাজস্থান ছাড়াও বিহার উত্তরপ্রদেশ ও মধ্যপ্রদেশের কিছু জায়গাতে প্রচলিত পাওয়া যায় l কিন্তু ‘ঔঘমো’ শব্দটি শুধুমাত্র রাজস্থানেই শোনা যায়, যার অর্থ- বর্ষার ঠিক আগেকার উত্তপ্ত সূর্য l এ সময় মরুভূমিতে ‘বলতি’ অর্থাত্ লু এবং বালির ঝড় বইতে থাকে l খবরের কাগজে শিরোনাম হয়- ‘মরুভূমির জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে’ l রেল লাইন, পাকা রাস্তা সবই বালির তলায় চলে যায় l তবুও এখানকার মানুষ এখনো পর্যন্ত এই ভয়ংকর ঝড়কে প্রকৃতির লীলারই এক অংশ বলে মনে করে l

তাই মরুভূমিতে জ্যৈষ্ঠকে কেউ গালমন্দ করে না l পুরো শরীর ঢেকে রাখা হয়, শুধু মুখটুকু খোলা থাকে l জোরে বয়ে চলা দক্ষিণী হাওয়া বালি তুলে তুলে মুখে ছুঁড়ে মারতে থাকে l তবুও যারা পশু চরায় অথবা গোয়ালারা, তারা জ্যৈষ্ঠকে গান গেয়ে স্বাগত জানায় এবং জ্যৈষ্ঠকে পাঠানোর জন্য শুদ্ধ কবির-ই শৈলীতে প্রভুকে ধন্যবাদ দেয় l ‘জেঠ মহিনো ভঁলা আয়ো দক্ষণ বাজে বা (হাওয়া), কানোঁ রে তো কাঁকড় বাজে ওয়ারে সাঁই ওয়াহ’ l

এ রকম গল্পও পাওয়া যায়- বারো মাস এক সঙ্গে বসে কথা বলছে, প্রতিটি মাসই নিজেকে প্রকৃতির যোগ্য পুত্র বলে পরিচয় দিচ্ছ l প্রতিযোগিতায় কিন্তু বাজি জেতে জ্যৈষ্ঠই l সে- ই ‘জ্যৈষ্ঠ’ অর্থাত্ সব থেকে বড় ভাই বলে স্বীকৃতি পায় l জ্যৈষ্ঠ যদি তাপ না দেয়, বালির ঝড় যদি না ওঠে তাহলে তো ‘জমানো’ ভালো হবে না l জমানো, অর্থাত্ বর্ষাকাল l বর্ষাকাল- চাষবাস ও ঘাসচারার জন্য ঠিক সময় l এই সময়ই পিথ অর্থাত্ সূর্য নিজের অর্থ পাল্টে জলের রূপ ধারণ করে l

আওগাল6 থেকে শুরু বর্ষা আগমনের সংকেত l পাড়ায় পাড়ায় ছেলেরা বেরোবে চাদর ছড়িয়ে ‘ডেডরিয়ো’ খেলতে, আর বড়রা বেরোবে ‘চাদরগুলো’ পরিষ্কার করতে l যে যে জায়গা থেকে বর্ষার জল সংগ্রহ করা হবে, সেখানের আঙিনা ছাত ও কুণ্ডিগুলোর ‘আগৌর’7 পরিষ্কার করা হবে l জ্যৈষ্ঠ শেষ হতে চলেছে, আষাঢ় এসে পড়ল, তবু এখনও বর্ষার দেরি আছে l আষাঢ়ের শুক্লা একাদশী থেকে শুরু হবে ‘বরসালি’ বা ‘চৌমাসা’8 l এখানে বর্ষা কম, কম দিনই বৃষ্টি পড়ে, কিন্তু সমাজ বর্ষার অভ্যর্থনায় অপেক্ষা করে থাকে পুরো চারটি মাস l

যে সমাজের হৃদয় এই অল্প একটু মেঘকেই এত নামে স্মরণ করে থাকে, তারা তার রূপোর মতো জলবিন্দুগুলিকে কতই না রূপে দেখেছে, কত নামেই না ডেকেছে l এখানেও তাই নামের ধারা পাওয়া যাবে l

বৃষ্টিবিন্দুর প্রথম প্রতিশব্দই হল ‘হরি’, দ্বিতীয় নাম ‘মেঘপুহুপ’ l বৃষ্টি শব্দিটি থেকে চলিত ভাষায় এসেছে ‘বিরখা’ ও ‘ব্রখা’ l ধনসম্পদের তথা মেঘের সার হল ‘ধানসার’ এবং আরও এক নাম ‘মেওলিয়ো’ l বৃষ্টি বিন্দুরই এত নাম, যে নামের মালা গাঁথা যেতে পারে l ‘বুলা’ ও ‘সিকর’ শব্দের অর্থ হল জলকণা l ‘ফুহার’ ও ‘ছিঁটা’ শব্দ সব জায়গাতেই পাওয়া যায় এবং তার থেকেই এসেছে ‘ছাঁটো’, ‘ছাঁটা’-‘ছড়কো’, ‘ছছোহো’ প্রভৃতি l আবার আকাশ থেকে টপকানো অর্থাত্ ঝরে পড়ার জন্য ‘টপকা’, ‘টপকো’ এবং ‘টিপো’ জাতীয় শব্দগুলির উদ্ভব l দুই-এক ফোঁটা বৃষ্টি হল, ‘ঝরমর’ l একই অর্থেই আবার পাওয়া যায় ‘পুণঙ্গ’ ও ‘জিখা’ জাতীয় শব্দ l দুই - এক ফোঁটার থেকে একটু বেশি অর্থাত্ ঝিরঝিরে বর্ষা হল ‘রিঠ’ ও ‘ভোট’ l আর এই ঝিরঝিরে বৃষ্টি ক্রমাগত চলতে থাকলে তা হল ‘ঝড়মন্ডল’ l

বর্ষার চার মাস এবং প্রতিটি আলাদা আলাদা মাসে যে বৃষ্টি হয় তারও আলাদা আলাদা নাম রয়েছে l ঝিরঝিরে বৃষ্টি হল ‘হলুর’, তবে তা শ্রাবণ ভাদ্রের বৃষ্টি l ঠান্ডায় যে ছিটে-ফোঁটা বৃষ্টি হয় তা হল ‘রোহাড়’ l বর্ষাওলি থেকে শুদ্ধ ভাষায় এসেছে বরখাওয়ল শব্দ, অর্থ অবশ্য সেই ঝিরঝিরে বৃষ্টি l ‘মেহাণ্ঝড়’- অর্থাত্ বৃষ্টির গতি বেড়ে যায় এবং সেই সঙ্গে সময়ও l ‘ঝাপটো’ বৃষ্টিতে কেবল গতিই বাড়ে কিন্তু সময় কমে যায়, অর্থাত্ এক ঝটকায় যেন সমস্ত জল ঝরে যায় l

মুসলধারা বৃষ্টির জন্য যে শব্দ ব্যবহৃত হয় তা হল ‘ত্রাট’ ‘ত্রমঝড়’, ‘ত্রাটকনো’ এবং ‘ধরহরনো’ l ‘ছোল’ শব্দে এই ধরণের বৃষ্টিই বোঝায় তবে তার পরিধির মধ্যে আনন্দের অর্থও ঢুকে পড়ে l এই ছোল, এই আনন্দ অবশ্যই শহরে জল সরবরাহ নলের শোঁ-শোঁ শব্দের নয় l এইরকম তীব্র বর্ষার সঙ্গে বয়ে আসে যে শব্দ তাকে বলে ‘সোক’ বা ‘সোকড়’ l বর্ষণ কখনো কখনো তীব্র, সশব্দে এবং এত দ্রুত হয়ে যায় যে মেঘ ও মাটির দীর্ঘ দূরত্ব ক্ষণিকের মধ্যে মাপা হয়ে যেতে পারে l তথন মেঘ থেকে মাটি স্পর্শ করে যে জলধারা তাকে বলা হয় ‘ধারোলি’ l

বর্ষা এবং তার প্রতিশব্দের বৈচিত্র্য এখানেই কিন্তু শেষ হয় না l ‘ধারোলি’ বৃষ্টির ছাঁট যখন বাইরে থেকে ঘরের মধ্যে এসে পড়ে তখন তাকে বলা হয় ‘বাছাড়’ l আর বাছাড়ের আর্দ্রতায় নেতিয়ে নরম ও স্যাঁতসেঁতে হয়ে যাওয়া ভিজে কাপড়ের বিশেষণ হল - ‘বাছাড়বায়ো’ l ধারোলির সঙ্গে যে শব্দ শোনা যায় তাকে বলা হয় ‘ধমক’ l এই শব্দটি পুংলিঙ্গ এবং ওজনেও যথেষ্ট ভারী l ধমককে সঙ্গে নিয়ে প্রচণ্ড বেগে যে হাওয়া প্রবাহিত হয়, তার নাম ‘ওয়াবল’ l

ধীরে ধীরে ওয়াবল -এর গতি কম আসে, ধমক শান্ত হয়ে যায়, কিছুক্ষণ আগেই যে ধারোলি মাটি স্পর্শ করেছিল তাও আবার মেঘের ভিতর মিলিয়ে যায় l বৃষ্টি থেমে যায় l তার পরও কিন্তু কিছু মেঘ আকাশে থাকে যায় l অস্তগামী সূর্য সেখান থেকে উঁকি দেয় l অস্ত সূর্যের সে কিরণকে বলে ‘মোঘ’ এবং এও বর্ষার এক ইঙ্গিত l মোঘ দেখা গেলে রাত্রে আবার বৃষ্টি হবে l যে রাত্র খুব বৃষ্টি হয় তা সাধারণ রৈন নয় তা হল ‘মহারৈন’ l

বৃষ্টি হওয়া সংক্রান্ত ক্রিয়ার নামে ‘তুঠনো’ এবং তা কমে আসা ‘ওবরেলো’ l ততদিনে চৌমাসা পেরিয়ে যায় l বর্ষা আরম্ভ হওয়া থেকে কমে আসা পর্যন্ত প্রতিটি গ্রাম প্রতিটি শহর ঘরের ছাতে, উঠোনে, খেতে, চৌরাস্তায় এমনকী নির্জন প্রান্তরেও জল কণাগুলিকে সংগ্রহ করে রাখার জন্য যেন চাদর বিছিয়ে রাখে l

‘পালর’ অর্থাত্ বর্ষার জল সংগ্রহ করে রাখার জন্যও এখানে বৃষ্টির প্রতিশব্দের মতোই যেন অসংখ্য নিয়ম রয়েছে l বিন্দু - বিন্দু জল জমে কলস ও সমুদ্র- দুইই ভরে ওঠে- এই ধরণের প্রবাদ প্রবচন কোনো পাঠ্য বইতে নয়, আমাদের সমাজের যৌথ স্মৃতির গভীরেই পাওয়া সম্ভব l এই স্মৃতি থেকেই তৈরি হয় শ্রুতি l এই শ্রুতি সমাজ স্মরণে রেখেছে, পরবর্তী প্রজন্মকে শুনিয়েছে এবং জল সংগ্রহের এই বিশাল ঐতিহ্যসম্পন্ন কাজকে কখন যেন একটু একটু করে ক্রমশ ব্যবহারিক ও যথেষ্ট প্রণালীবদ্ধ করে এমন এক পরিকাঠামো তৈরি করেছে যে সমস্ত সমাজ সেখানে এক প্রাণ হয়ে উঠেছে l এই পরিকাঠামোর আকার এত বড় যে তা রাজ্যের প্রায় তিরিশ হাজার গ্রাম এবং তিনশো শহর ও মফস্বলের সকল মানুষের ভিতর ছড়িয়ে ছিটিয়ে এক নিরাকার রূপ নিয়েছে l

এই নিরাকার সংগঠনের ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব এখানকার জনসমাজ, না রাজ্য না সরকারের হাতে দিয়েছে, না আধুনিক পরিভাষা অনুসারে যাকে ব্যক্তিগত মালিকানার অধীনস্থ বলে চিহ্নিত করা হয়- সেইরকম কারো হাতে l পুরোনো পরিভাষায় যাকে বলে ‘নিজের হাতে রাখা’, সমাজ এ ব্যবস্থাকে সেরকম ভাবেই রেখেছে l প্রতিটি ঘর প্রতিটি গ্রাম থেকে মানুষ এই পরিকাঠামোকে বাস্তব রূপ দিয়েছে, বাঁচিয়ে রেখেছে এবং উন্নত রূপ দিয়ে পরবর্তী প্রজন্মের হাতে তুলে দিয়েছে l

‘পিঁডওড়ি’ শব্দের অর্থ নিজের প্রচেষ্টা ও পরিশ্রম এবং সেই পরিশ্রম দিয়ে অন্যকে সহায়তা করা l বর্ষার প্রতিটি জলবিন্দু সংগ্রহ করে রাখার জন্য সকলে মিলে পরিশ্রম করেছে, ঝরে পড়েছে কর্মক্লান্ত ঘাম বিন্দু l

Post new comment

The content of this field is kept private and will not be shown publicly.
  • Web page addresses and e-mail addresses turn into links automatically.
  • Allowed HTML tags: <a> <em> <strong> <cite> <code> <ul> <ol> <li> <dl> <dt> <dd>
  • Lines and paragraphs break automatically.

More information about formatting options

CAPTCHA
यह सवाल इस परीक्षण के लिए है कि क्या आप एक इंसान हैं या मशीनी स्वचालित स्पैम प्रस्तुतियाँ डालने वाली चीज
इस सरल गणितीय समस्या का समाधान करें. जैसे- उदाहरण 1+ 3= 4 और अपना पोस्ट करें
2 + 3 =
Solve this simple math problem and enter the result. E.g. for 1+3, enter 4.