কিছু শব্দার্থ : পধারো মাহরে দেশ

Submitted by Hindi on Wed, 03/22/2017 - 14:52
Source
'राजस्थान की रजत बूँदें' बंगाली संस्करण

1. অতীতে অনেকবার দীর্ঘ সময় ধরে রাজস্থানের বর্তমান মরু অঞ্চলে সমুদ্র বিরাজ করেছে l সার্মো কার্বোনিফেরাস ভূতাত্ত্বিক যুগে পশ্চিম যোধপুর ও জয়সলমের অঞ্চল পুরোপুরি সমুদ্রের তলায় ছিল l ক্রিটাসিয়াম যুগের শুরুতে সমুদ্র পিছিয়ে গেলেও মধ্য পর্বে আবার তা এগিয়ে আসে এবং পরিশেষে মায়োসিন ও প্লায়োসিন যুগে স্থায়ীভাবে পিছিয়ে যায় l মরুভূমির অধিকাংশ বৈশিষ্ট্যই অর্জিত হয়েছে তারও পরে, প্লায়োস্টাসিন তুষার যুগের সমাপ্তির পর l কয়েক কোটি বছর আগেকার অবক্ষেপণ ও বিশেষ ধরনের মাটি ও ভূমিরূপই র্নিভুলভাবে জানিয়ে দেয়, সেই সময়ে মরুভূমির বদলে এই অঞ্চলে ছিল দিগন্তবিসারী সমুদ্র l

2. মাঙ্গাণিয়া – লাঙ্গা : সঙ্গীতে প্রসিদ্ধ রাজস্থানের বিশেষ জাতি l

3. ধরতি ধোরা রি : ধোরা অর্থাত বালির টিলা l যে ধরিত্রীতে পর্বতের মত বড় বড় বালির টিলা থাকে, তাকেই ধরতি ধোরা রি বলা হয়েছে l

মাটি, জল ও তাপের তপস্যা
4. গুগরি : রাজস্থানে বিশেষ বিশেষ অনুষ্ঠানে এই গুগরি তৈরী করার প্রচলন দেখা যায় l গম, ছোলা ও কখনও কখনও আটা, সব একসঙ্গে সেদ্ধ করে তাতে ভুরা ( দেশিয় চিনি ) মিলিয়ে গুগরি তৈরি হয় l

2. আসলে বালির টিলাগুলো কখনোই একই জায়গায় স্থানীয়ভাবে অপরিবর্তিত অবস্থায় থাকে না l প্রবল বাতাসে উড়ে আসা বালি স্তূপ হয়ে জমে উঠে যেমন এই টিলাগুলি তৈরি হয়, তেমনি বাতাসের গতি বদলে গেলে ওই বালি আবার অন্যত্র উড়ে গিয়ে স্তূপ হয়ে নতুন টিলা সৃষ্ট করে l মরুভূমিতে বালির পুরোনো টিলাগুলি বাতাসের গতির অনুকূলে একটু একটু করে স্থান পরিবর্তন করে – এই ঘটনা অতি স্বাভাবিক l টিলাগুলির এই গতিশীল চরিত্রকেই মূল পাঠে আলঙ্কারিক অর্থে ডানা মেলে উড়ে বেড়ানোর সঙ্গে তুলনা করা হয়েছে l

3. ভূমিক্ষয়, ভৌমজলের অবস্থান, বৃক্ষছেদন, বালিয়াড়ি ও বাতাসের পরিবর্তনশীল চরিত্র প্রভৃতি বিভিন্ন প্রাকৃতিক ও মানবিক কারণে মরুভূমির সীমানা ক্রমশ বেড়ে যেতে পারে l মরুর ভিতরে ও পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে অবস্থিত গ্রাম ও শহরগুলির পক্ষে মরুভূমির এই ক্ষেত্রফল বৃদ্ধি এক জীবনমরণ সমস্যা l থর মরুভূমিও এর ব্যতিক্রম নয় l

বৃক্ষরোপণ উত্সব, বালিয়াড়িগুলিতে ঘাস ইত্যাদি লাগিয়ে তাকে স্থায়ী করার চেষ্টা, বাতাসের গতির বিপক্ষে আড়াআড়িভাবে একাধিক সারিতে শেল্টার হিসেবে বড় গাছ লাগিয়ে তার গতি কমানোর উদ্যোগ, ভৌমজলের উন্নতিসাধন প্রভৃতি বিভিন্ন পরিকল্পনা কেন্দ্র ও রাজ্য সরকার থেকে কার্যকরী করার চেষ্টা হয়েছে l সুফল কিছু পাওয়া গেলেও মরু প্রসারের সমস্যা আজও সম্পূর্ণরূপে সমাধান করা যায়নি l

4. দুটি পাহাড়ের মধ্যবর্তী নীচু উপত্যকা মতো অঞ্চলকে বলে দররো l আরাবল্লীর এই রকম সব অবনমিত অঞ্চল থেকে বাতাসের ধাক্কায় বালি উড়ে গিয়ে আরো পূর্বে উল্লিখিত স্থানগুলিতে উঁচু নিচু টিলার আকারে জমা হয় ও মরু বিস্তারে সাহায্য করে l

5. ওম - গোম : ওম অর্থাত আকাশ, গোম অর্থাত পৃথিবী l

6. আউগাল : বর্ষা আগমনের প্রথম সংকেত বা প্রথম দিন l ( আষাঢ়স্য প্রথম দিবসে, এই ভাবে বলা যেতে পারে ) l

7. যেখান থেকে বৃষ্টির জল সংগ্রহ করা হয়, সেই জায়গাটা হল আগৌরl

8. বর্ষার চার মাসকে বলা হয় বরসালি বা চৌমাসা l

থেমে থাকা জল নির্মল
1. রামরজ এক প্রকার গেরুয়া রঙের মাটি

বিন্দুতে সিন্ধু
1. কবীরের একটি প্রবচন হল

সাঁই ইতনা দিজিয়ে জ্যামেঁ কুটুম সামায়

ম্যাঁ ভি ভুখা ন রহুঁ সাধু ন ভুখা যায় l

হে প্রভু এতটুকু অন্তত দিয়ো, যাতে আমিও ক্ষুধার্ত না থাকি, অতিথিকেও ফিরিয়ে দিতে না হয় l কিন্তু জলের ব্যাপারে রাজস্থানের ঐতিহ্য এতটাই সমৃদ্ধ যে, যতটুকুই বৃষ্টি হোক তাতেই তাঁরা নিজেদের প্রয়োজন মিটিয়ে নিতে সক্ষম l

2. তিজ রাজস্থানের একটি অতি সুন্দর উত্সব l শ্রাবণের শুক্লা তৃতীয়া তিথিতে মহিলারা পূর্ণ শৃঙ্গারের সঙ্গে পালন করেন এই উত্সব l

ভুনের বারোমাস
1. খেলিয়াঁ : এটি খেল শব্দের বহুবচন l খেল শব্দের অর্থ হল, পাথর অথবা সিমেণ্টের বড় সড় পাত্র বা চৌবাচ্চার মতো l এতে পশুদের জন্য জল ভরে রেখে দেওয়া হয় l গরমকালের চার মাস শহর, গ্রাম গোচারণভূমি এমনকী কখনও তো জঙ্গলের মধ্যেও গৃহস্থেরা নিজেদের খরচায় কুয়ো বা পুকুর থেকে এগুলিতে জল ভরিয়ে বা ভরে রেখে দেয় l মরুভূমির এই যে উদার ব্যবস্থা, এটি এখনও নষ্ট হয়ে যায়নি l

2. হোড়, অর্থাত স্পর্ধা l

Disqus Comment